-হাসান ইনাম

স্যার জাহেদ সোহরাওয়ার্দী এবং খোজেস্তা বানুর সন্তান হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। পশ্চিমবঙ্গের মোদিনীপুরে ১৮৯২ সালের ৮ ই সেপ্টম্বর জন্মগ্রহণ করেন তিনি।
তিনি কলকাতা সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে বিজ্ঞানে স্নাতক, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবি ভাষা সাহিত্যে এমএ, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্সসহ বিএসসি, বিসিএল, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, অর্থনীতি ও ইংরেজিতে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। তারপর গ্রেস ইন থেকে ব্যারিস্টারি পাস করে ১৯১৮ সালে দেশে ফিরে আসেন এবং কলকাতা হাইকোর্টে আইন ব্যবসায় যোগ দেন।
সোহরাওয়ার্দী ১৯২০ সালে খেলাফত আন্দোলনে যোগদানের মাধ্যমে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন।
১৯২৪ সালে কলকাতা করপোরেশনের ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত হন। ১৯২৭ সালে ন্যাশনাল লেবার ফেডারেশন গঠন করেন। ১৯৩৪ সালে একই সাথে দুটি আসন থেকে বঙ্গীয় ব্যবস্থাপক সভার সদস্য নির্বাচিত হন। একই বছর শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের বঙ্গীয় কোয়ালিশন সরকারের বাণিজ্য ও শ্রম দফতরের মন্ত্রীও নিযুক্ত হন।
বর্ণাঢ্য রাজনীতি জীবনে তিনি একাধিকবার মন্ত্রীসভার বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৫৪ সালে তিনি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারের আইনমন্ত্রী ছিলেন।
১৯৫৬ সালে তাঁর নেতৃত্বেই গঠিত হয় আওয়ামী-রিপাবলিকান পার্টির কোয়ালিশন মন্ত্রীসভা।
তাকে আখ্যায়িত করা হয় ‘গনতন্ত্রের মানসপুত্র’ নামে। তিনি ছিলেন তুখোড় রাজনীতিবিদ।
মহান এই নেতা ১৯৬৩ সালের আজকের এই দিনে (৫ ডিসেম্বর) বৈরুতে মৃত্যুবরণ করেন।
চ্যানেল আগামীর পক্ষ থেকে মহান এই নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।
অলংকরণ-সাদ খন্দকার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here