ইভান পাল

গত ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, বৃহস্পতিবার ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মীরে এক ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় ভারতের কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর  (সিআরপিএফ জওয়ান) অন্তত ৪৭ জন সদস্য নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাজ্যের পুলওয়ামা জেলার অবন্তিপুর এলাকায় এই ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনাটি ঘটে।

ভারতের গুরুত্বপূর্ণ গণমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

এদিকে এই ঘটনায় ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর (সিআরপিএফ) প্রায় ৭৮টি গাড়ি লক্ষ্য করে এই হামলা চালানো হয়। হামলায় বেশ কয়েকজন আহত ও হয়েছেন।  হতাহতদের শ্রীনগরে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই হামলায় প্রায় সাড়ে তিনশ কেজি বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে।

পুলিশ এবং সিআরপিএফ কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছেন, এটা ছিল একটা আত্মঘাতী হামলা এবং হামলাকারীর নাম আদিল আহমেদ। তিনি পুলওয়ামা জেলারই বাসিন্দা এবং গত বছর জঙ্গী সংগঠন জৈশ এ মোহাম্মদে সে যোগ দিয়েছিল।

ভারতের স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, পুলিশ সূত্রগুলো বলেছে, গতকাল পুলওয়ামা জেলায় মহাসড়ক হয়ে জম্মু থেকে শ্রীনগরের দিকে যাচ্ছিল সিআরপিএফের একটি বহর। অবন্তিপুর এলাকায় ওই বহরের ওপর এই হামলা চালানো হয়।

বিবিসি নিউজ এবং ভারতের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম দ্বারা জানা যায়, প্রায় ২৫০০ সদস্য ৭০টি ট্রাক আর বাসে করে জম্মু কাশ্মীর থেকে কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরের দিকে যাচ্ছিলেন।

লেথপোড়া নামক স্থানের কাছে একটি বিস্ফোরক বোঝাই এসইউভি গাড়ি সেই সিআরপিএফ জওয়ানদের কনভয়ে ঢুকে পড়ে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটায় ৫৪ নম্বর ব্যাটালিয়নের একটি গাড়িতে। আর সাথে সাথেই আশপাশ থেকে জঙ্গীরা বেরিয়ে এসে বৃষ্টির মতো গুলি ছুড়তেঁ শুরু করে। বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি দিয়ে এ আক্রমণ চালানো হয়।

এনিয়ে নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, সম্ভবত শুধু গুলি নয়, রকেটচালিত গ্রেনেড বা আরপিজিও ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে। তারা আরো বলেন, যে আকারের গর্ত দেখা যাচ্ছে, তা সাধারণ গুলির চিহ্ন নয়।

এ ঘটনায় সিআরপিএফ জওয়ানদের বহনকারী একটি বাস সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস হয়ে গেছে, আর কনভয়ে থাকা অন্য গাড়িগুলিতে গুলি লেগেছে।

ঘটনাস্থলে পৌঁছনো সাংবাদিকরা বলছেন, অনেকটা এলাকা জুড়েই যেন যুদ্ধক্ষেত্রের মতো অবস্থা। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে জওয়ানদের দেহাবশেষ। আর সিআরপিএফ সদস্যদের ব্যাগ বিভিন্ন সামগ্রী এবং বিধ্বস্ত সেনা ট্রাকগুলি রাস্তায় দাঁড়িয়ে রয়েছে।

আর এ হামলার দায় ইতিমধ্যেই পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী জয়েশ-এ-মোহাম্মদ স্বীকার করেছে।

এদিকে ন্যাক্কারজনক এ ঘটনায় এক বিবৃতিতে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, জঙ্গি হামলার যোগ্য জবাব দেবে ভারত। এই হামলার জন্য সরাসরি পাকিস্তানকে দায়ী করে তিনি জানান যারা যারা জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেবে না ভারত। আমরা দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে বলতে চাই, নিশ্চিন্ত থাকুন হামলার যোগ্য জবাব দেওয়া হবে।

আর এ ঘটনার পর পরই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক টুইট বার্তায় বলেছেন, পুলওয়ামায় সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর হামলার ঘটনা নিন্দনীয়। আমি এই ধরনের কাপুরুষোচিত হামলার তীব্র নিন্দা করছি। আমাদের বীর নিরাপত্তাকর্মীদের বলিদান বিফলে যাবে না। বীর শহিদদের পাশে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়াবে গোটা দেশ। এসময় তিনি এ ঘটনায় আহত জওয়ানদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন।

ভয়াবহ এ হামলায় নিন্দার ঝড় উঠেছে দেশটির ক্রিকেট অঙ্গন থেকে শুরু করে বলিউড তারকা পর্যন্ত।

তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন ভারতের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক বিরোধী দল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ও।

তিনি বলেন, সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর এভাবে কাপুরুষোচিত হামলায় তিনি অত্যন্ত বিরক্ত। পুলওয়ামায় হামলা নিয়ে তিনি এক ট্যুইট বার্তায় লেখেন, শহিদদের পরিবারের প্রতি আমার সমবেদনা। আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।

আর এধরনের হামলার ঘটনায় দেশটির সকল রাজনৈতিক নেতারা ও সরব হয়ে উঠেছেন। সকলেই এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

নিন্দা জানিয়ে ভারতের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি এ ঘটনায় শহিদদের পরিবারের প্রতিও শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন।

এদিকে পুলওয়ামায় এ আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার ঘটনায় কড়া নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি জানিয়েছেন, “এ চরম দুঃখের সময় আমরা ভারতবাসী এবং সেখানকার সরকারের পাশে আছি। এই হামলায় যাদের মৃত্যু হয়েছে তঁদের পরিবারকে সমবেদনা জানাচ্ছি। যারা আহত হয়েছেন এবং হাসপাতালে ভর্তি আছেন তাঁদেরও দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।”

শেখ হাসিনার তাঁর এই বার্তায় আরও বলেন, “সবধরনের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশ যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তা পালনে দায়বদ্ধ। সব ধরনের জঙ্গি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের নীতিকেই পালন করছে তারঁ সরকার। সন্ত্রাসবাদ কে নির্মূল করতে আমরা ভারত সহ আন্তর্জাতিক দুনিয়ার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করে যাব”।।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here