ফাহাদ রহমান প্লাবন

স্রোতের বিপরীতে হাটা আমার পুরনো অভ্যাস। এইতো সেদিন বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের লড়াই করে হারা বাংলাদেশকে প্রশংসার সাগরে ভাসাচ্ছেন সবাই।

কিন্তু, আমি একটু ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখা ছোট্ট এক প্রচেষ্টা করছি। সাব্বিরের ক্যাচ মিস, রানআউট মিস বাদ দিয়ে টাইগারদের ব্যাটিংয়ের দিকে নজর দেই। যে পিচে খেলা হয়েছে সেই পিচে ৩৮০ নরমাল স্কোর। বরং, আমি মনে করি আরো ৩০রান শর্ট ছিল অজিদের।

জ্বী হ্যাঁ। পিচ ছিলো ব্যাটসম্যানদের স্বর্গ। আপনি ক্রিজে আসবেন, সেট হবেন বুদ্ধিমত্তার সাথে ব্যাটিং করবেন। ২০০রান করতে পারবেন চোখ বন্ধ করেই। অজি বোলিংয়ের দিকে আলোকপাত করে যা বলা যায় তার সাথে অনেকেই দ্বিমত পোষণ করতে পারে।তবে ক্রিকেট বিশ্লেষকরা হয়তো আমার সাথে একমত হবেন যে গতকাল স্টার্ক কামিন্সরা আগুন ঝরানো বোলিং করতে পারেনি।অনেকেই প্রশংসার পাশাপাশি দাবী করেছেন আমরা ম্যাচ হেরেছি শেষ দশ ওভারে৷ আমি তা মনে করি না। আমি মনে করি আমরা ম্যাচ হেরেছি মুশি রিয়াদের বোকামি এবং সঠিক সময়ে ড্রেসিংরুমের সঠিক সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগার কারণে। ৩০ওভার শেষে যখন আস্কিং রেট ১২এর কাছাকাছি তখন কেন মুশি রিয়াদ রানরেট এক্সেলেরেট করলো না। এমনতো নয় যে ৩০-৪০ওভারে আহামরি বোলিং করেছিল অজিরা।যেখানে ৪০-৫০ ওভারে আপনার আস্কিং রেট ১৫-১৬ সেখানে তারা ওভার প্রতি রান করছেন ১১/১২করে। এমনতো না যে অজিরা ৩০-৪০ওভারে আহামরি বোল করেছে আর ৪০-৫০ ওভারে ফালতু বোলিং করেছে। ওরা পুরো ম্যাচেই একই ধারায় বোলিং করেছে। তাহলে সেট ব্যাটসম্যান হয়ে কেন মুশি রিয়াদ ৩০ কিংবা ৩৫ ওভার থেকেই রানরেট এক্সেলেরেট করলো না?? কিংবা কেন ড্রেসিংরুম থেকে মেসেজ আসলো না যে এবার এক্সেলেরেট করো। উইকেট ধরে খেলার কথা বলবেন?? তাহলে এতো বড় ব্যাটিং লাইন আপ কেন?? উইকেট হাতে থাকলে শেষ দশ ওভারে এক্সেলেরেট করবে? এমন কোনো হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান টিমে নেই সেইটা কি মাথায় নেই!! কেন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এগ্রেসিভনেস ছিলো না?? তবে কি এখনো বাংলাদেশ বড়দলগুলোর বিরুদ্ধে তাদের নার্ভ কন্ট্রোলে রাখতে পারে না?প্রশ্ন অনেক। উত্তরদাতা কোথাও নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here